মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা, ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন স্কেল

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা 2023 – ফ্যাক্টরি ভিসা বেতন স্কেল

দীর্ঘ পাঁচ বছর পর মালয়েশিয়া সরকার বৈধ ভাবে বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। দীর্ঘদিন যাবৎ বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় এর সাথে মালয়েশিয়ার সম্পর্ক ভাল ছিলনা। যার ফলে মালয়েশিয়া সরকার বাংলাদেশ থেকে কোন শ্রমিক বৈধ ভাবে নেয় নি। তবে বর্তমানে মালয়েশিয়ায় সরকার বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেবে। এক্ষেত্রে ফ্যাক্টরি ভিসা শ্রমিক সবচেয়ে বেশি নিবে।

ফ্যাক্টরি ভিসা মালয়েশিয়াতে বেতন সবচেয়ে বেশি থাকে। যার ফলে বেশীরভাগ মানুষ ফ্যাক্টরি ভিসা মালয়েশিয়া যেতে ইচ্ছুক। আপনি যদি ফ্যাক্টরি ভিসা মালয়েশিয়া যেতে চান তাহলে নিচের অংশ ভালো করে পড়বেন। কেননা ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া যেতে যে সকল কাগজপত্র প্রয়োজন পড়ে তা আমি উল্লেখ করে দিয়েছি।

Table of Contents

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসা

মালয়েশিয়া সরকার বাংলাদেশ থেকে 2 লক্ষ শ্রমিক নেয়ার কথা বলেছে। তার মধ্যে এই বছর বাংলাদেশ থেকে প্রায় এক লাখ শ্রমিক নেবে। এরপর আস্তে আস্তে বাকি এক লাখ শ্রমিক নিয়োগ দিবে। আপনি যদি ফ্যাক্টরি ভিসা মালয়েশিয়া যান তাহলে আপনার বেতন স্কেল ভালো হবে। ফ্যাক্টরি ভিসা মালেশিয়া গেলে আপনার বেতন 60 হাজার থেকে 80 হাজার হবে

এছাড়াও আপনার আরও নানান সুবিধা রয়েছে। এর মধ্যে আপনার ওভারটাইম করা যাবে না। কেননা ওভারটাইমের টাকা ফ্যাক্টরি ভিসা তে বেতন স্কেল দিয়ে দেয়। যার ফলে ওভারটাইম করার প্রয়োজন পড়ে না। এছাড়াও ফ্যাক্টরি ভিসা মালয়েশিয়ায় আপনাকে 8 থেকে 12 ঘন্টা ডিউটি করতে হবে। এর বেশি ডিউটি করার প্রয়োজন পড়ে না।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • বর্তমানে মালয়েশিয়া যাওয়ার জন্য অবশ্যই আপনাকে করোনাভাইরাসের টিকা গ্রহণ করতে হবে।
  • দুই বছরের মেয়াদ সহ একটি বৈধ পাসপোর্ট লাগবে।
  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্র থাকতে হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র হতে পারে ড্রাইভিং লাইসেন্স বা ভোটার আইডি কার্ড।
  • আবেদনকারী সদ্য তোলা ২ বাই ২ সাইজের সাদা ব্যাকগ্রাউন্ড এর রঙিন ছবি।

মালয়েশিয়া কোম্পানি ভিসা

যেহেতু মালয়েশিয়ায় ফ্যাক্টরি পরিমাণ বেশি তাই তারা কোম্পানি ভিসা সবচেয়ে বেশি লোক নিয়ে থাকে। আর কোম্পানির ভিসায় তারা বেতন বেশি দিয়ে থাকে। আপনি যদি কোম্পানি ভিসা মালয়েশিয়া যান তাহলে আপনাকে প্রতিনিয়ত 10 থেকে 12 ঘন্টা ডিউটির জন্য বাংলাদেশী টাকায় 2000 অথবা এর চেয়ে বেশি দেয়া হবে।

আর কোম্পানি ভিসা এর একটি অসুবিধা হলো এখানে দাঁড়িয়ে কাজ করতে হয়। তাছাড়া কোম্পানির ভিসার কোন অসুবিধা নেই। আর আপনি যদি দাঁড়িয়ে কাজ করতে পারেন তাহলে আপনার জন্য তা ভালো। যেহেতু এর বেতন স্কেল অনেক বেশি তাই যারা প্রবাসী তাদের জন্য সুবিধাজনক হবে।

মালয়েশিয়া ফ্যাক্টরি ভিসার বেতন কেমন

আপনি যদি ফ্যাক্টরি ভিসায় মালয়েশিয়া যেতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে আপনি 60 থেকে 80 হাজার টাকা উপার্জন করতে পারবেন। আপনি যদি 10 থেকে 12 ঘন্টা কাজ করেন তাহলে আপনার বেতন স্কেল নিম্নে 60 হাজার টাকা হবে। তবে ফ্যাক্টর ভিত্তিক কাজের ধরন আলাদা। কত কত ফ্যাক্টরিতে 8 থেকে 10 ঘন্টা ডিউটি দেয়া হয়। সে ক্ষেত্রে আপনার বেতন 60 হাজারের মধ্যে হবে।

মালয়েশিয়া যেতে কত টাকা লাগে

বর্তমানে মালয়েশিয়া সরকার মালয়েশিয়া যেতে টাকা নির্ধারণ করে দিয়েছে। মালয়েশিয়া সরকারের নিয়ম অনুযায়ী বাংলাদেশ থেকে মালয়েশিয়া যেতে আপনার 1 লক্ষ 60 হাজার টাকা খরচ পড়বে। কিন্তু বাংলাদেশী দালাল 2 লক্ষ এর উপরে টাকা নিয়ে থাকে মালয়েশিয়া যেতে। বাংলাদেশ দুর্নীতি প্রবণ দেশ। যার ফলে আপনি বৈধ উপায়ে ভালোভাবে কোন দেশে যেতে পারবেন না।

অতিরিক্ত দালালি ভরপুর হওয়ার কারণে বাংলাদেশ থেকে যে কোন দেশে যেতে টাকার পরিমাণ বেশি লাগে। কেননা বাংলাদেশ সরকার এসব দালালদের লালন পালন করে। প্রতিবছর দালাল নিয়ে নানা ধরনের পত্রিকায় প্রতিবেদন করা হয়। এরপর প্রশাসনের কোনো ব্যবস্থা নেয় না। প্রশাসন ব্যবস্থা নিলেই আশা করা যায় কম টাকায় আপনারা বিদেশ যেতে পারবেন।

Read More