সিঙ্গাপুর ভিসা কত টাকা ও সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং

সিঙ্গাপুর ভিসা কত টাকা ও সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং

অনেকের মনে প্রশ্ন থাকে সিঙ্গাপুর ভিসা বের করতে কত টাকা খরচ হয় এবং কিভাবে ভিসা প্রসেসিং করতে হয়? আমাদের আজকের পোষ্টের বিষয় সিঙ্গাপুর ভিসা কত টাকা ও সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং করার নিয়ম। যারা সিঙ্গাপুর যাওয়ার জন্য ভাবছেন তাদের জেনে রাখা ভালো সিঙ্গাপুর ভিসার দাম কত। কেননা অনেক সময় অনেকে দালালের খপ্পরে পড়ে বেশি টাকা দিয়ে ভিসা কিনে থাকে। তাই আপনার যদি ভিসার দাম সম্পর্কে জানা থাকে তাহলে আপনার খরচ কম হবে।

অন্যান্য দেশের তুলনায় সিঙ্গাপুর ভিসা পাওয়া খুবই কঠিন। সিঙ্গাপুর ভিসা পাওয়ার পূর্বে আপনার পরীক্ষা নেওয়া হবে। আমরা যাকে স্কিল বলে চিনি। আপনি যদি স্কিলে পাস করেন তারপর আপনি সিঙ্গাপুর ভিসা পাবেন। তাছাড়া আপনার সিঙ্গাপুর ভিসা পাওয়ার কোন সম্ভাবনা নাই। তবে সিঙ্গাপুর ক্লিনার ভিসা পাওয়ার জন্য স্কিল পরীক্ষা দিতে হয় না। স্কেল পরীক্ষা হল দক্ষতার পরীক্ষা। আপনি যে বিষয়ে ভিসা নিবেন তাতে আপনি দক্ষ কিনা তার জন্য তারা পরীক্ষা নেয়।

Table of Contents

সিঙ্গাপুর ভিসা কত টাকা

সিঙ্গাপুর ভিসার দাম একটু অন্যরকম ভাবে ধরা হয়। যেমন আপনি যে কোম্পানিতে কাজ করবেন সেখানে আপনার প্রতি মাসের বেতন কত তার হিসেবে ভিসার দাম ধরা হয়। এখানে ধরেন আপনার কোম্পানির প্রতি মাসের বেতন ৬০ হাজার টাকা। তাহলে আপনার ভিসার দাম হবে ৬০ হাজার টাকা প্রতি বছরের হিসেবে। এখন যদি আপনি ৫ বছর সেখানে থাকতে চান তাহলে আপনার ভিসার দাম পড়বে ৫*৬০ বা ৩ লক্ষ টাকা। প্রতি বছরের জন্য আপনাকে এক মাসের টাকা তাদের দিতে হবে।

এভাবে আপনি যত বছর থাকবেন আপনাকে বছর হিসেবে করে প্রতিবছরের জন্য এক মাসের বেতন আপনাকে খরচ করতে হবে ভিসা রিনিউ করার জন্য। আশা করি আপনি সিঙ্গাপুর ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পেরেছেন। তা ছাড়া বর্তমানে সিঙ্গাপুর যেতে সবমিলিয়ে প্রায় ৭ লক্ষ থেকে ৮ লক্ষ টাকা খরচ হয়ে থাকে।

সিঙ্গাপুর ভিসা প্রাইস

সিঙ্গাপুর ভিসা প্রাইস নির্ভর করে আপনার বেতনের উপর। আপনি যে কোম্পানিতে কাজ করবেন সেখানে আপনাকে প্রতিমাসে যে বেতন দেবে তার উপর আপনার ভিসার মূল্য নির্ধারণ করা হবে। এর জন্য আপনাকে প্রতি এক বছর সেই কোম্পানিতে থাকার জন্য আপনাকে প্রতি এক মাসের বেতন তাদের দিয়ে দিতে হবে। বুঝতে পারছেন যদি আপনি ৬ বছর থাকেন তাহলে আপনাকে ৬ মাসের বেতন তাদেরকে দিয়ে দিতে হবে।

তাছাড়া ভিসা মূল্য, বিমান ভাড়া থেকে শুরু করে সব মিলিয়ে খরচ হয়ে থাকে ৭ লক্ষ থেকে ৮ লক্ষ টাকা। বর্তমানে সিঙ্গাপুর ভিসা প্রাইস অনেক বেশি। কেননা এখন সিঙ্গাপুরে প্রতিটা কোম্পানি অনেক বেশি বেতন দিয়ে থাকে শ্রমিকদের। যার ফলে এখন সিঙ্গাপুরের ভিসার দাম বেড়ে গিয়েছে।

সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং

আপনি চাইলে দালালের মাধ্যমে সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং করতে পারবেন। আবার আপনার পরিচিত কেউ যদি সিঙ্গাপুর থাকে তার মাধ্যমে সিঙ্গাপুর ভিসা বের করে নিতে পারবেন। যদি আপনার পরিচিত কেউ সিঙ্গাপুর থাকে তাহলে আপনার ভিসা সফট কপি পাঠিয়ে দিলে সে নিজেই কোম্পানিতে ভিসা লাগিয়ে ভিসা প্রসেসিং করে দিবে। এর জন্য আপনাকে বাড়িতে ঝামেলা পোহাতে হবে না।

আবার যদি আপনার পরিচিত কোন দালাল সংস্থা থাকে তার মাধ্যমে সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং করে নিতে পারবেন। তবে সে ক্ষেত্রে আপনার খরচের পরিমাণ একটু বেশি হবে। আর যদি আপনার পরিচিত কেউ বা আত্মীয় কেউ সিঙ্গাপুর থাকে তাহলে তার মাধ্যমে ভিসা প্রসেসিং করার সবচেয়ে ভালো। কেননা এ ক্ষেত্রে আপনার খরচের পরিমাণ অনেক কম হবে। আবার কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি কোম্পানিতে গিয়ে বেতন পেয়ে তারপর তাদের টাকা দিয়ে দিতে পারবেন।

আশা করি বুঝতে পারছেন এক্ষেত্রে আপনার খরচের পরিমাণ খুবই কম হবে এবং আপনার জন্য অনেক সুযোগ সুবিধা থাকবে, যা দালালের মাধ্যমে গেলে আপনি পাবেন না। তাই সিঙ্গাপুর ভিসা প্রসেসিং করতে চাইলে পরিচিত কাউকে খুঁজে বের করুন যে সিঙ্গাপুর বর্তমানে অবস্থান করতেছে।

Read More