সুস্থ থাকার উপায় এবং কি করলে শরীর সুস্থ থাকে ৷

সুস্থতা হলো আল্লাহ তাআলার নিয়ামত ৷ কিন্তু এই সুস্থতা নিয়ে আমরা তেমন কোন মাথা ঘামাই না ৷ যার কারণে আমরা প্রায় অনেক সময় বড় বড় রোগে আক্রান্ত হই ৷ তারপরেই আমরা আমাদের অসুস্থতা নিয়ে মাথা ঘামায় ৷ তবে এ সময় মাথা ঘামিয়ে তেমন কোনো লাভ হয় না ৷ কিন্তু আমরা যদি সুস্থ থাকা অবস্থায় কিছু রুটিন করে চলি তাহলে আমাদের আর এই অসুস্থতায় পড়তে হবে না ৷

আর আমি আপনাদের সাথে আজকে আলোচনা করব কিভাবে সুস্থ থাকা যায় ৷ যে পথগুলো অবলম্বন করলে আমরা সুস্থ থাকতে পারবো সে বিষয়গুলো আজকে আমি আপনাদের সামনে তুলে ধরব ৷ আশা করি আপনি যদি সুস্থ থাকতে চান তাহলে আজকের এই পোস্টটি ভালোভাবে পড়বে ৷ তাহলে চলুন আর দেরি না করে কিভাবে সুস্থ থাকা যায় ৷

সুস্থ

সুস্থ থাকার মর্ম টা একমাত্র অসুস্থ ব্যক্তিরা জানেন ৷ প্রকৃত অর্থ সুস্থ থাকতে হলে আপনাকে শুরু থেকেই রুটিন এর মধ্যে নিজেকে রাখতে হবে ৷ তবে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন ৷ তবে এই রুটিন গুলো অত্যন্ত সহজ কিন্তু আপনি যদি একবার অসুস্থ হয়ে পড়েন এরপর যে রুটিন দেওয়া হবে আপনাকে সেই নিয়মগুলো অত্যন্ত কঠিন হয়ে থাকে কিন্তু তারপরেও আমরা পালন করি ৷

তবে অলসতা করে সুস্থ অবস্থাকে আমরা অবহেলা করে নিজেকে অসুস্থ করে তুলি ৷ তাই আমাদের প্রতিনিয়ত কিছু নিয়ম কানুন মেনে চললেই আমরা সব সময় সুস্থ থাকতে পারবো ৷ যেমন ধরুন আমরা অনেক সময় পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি খাই না যার কারণে অসুস্থ হয়ে পড়ি এছাড়াও আরো বিভিন্ন কারণে আমরা অসুস্থ হয়ে পড়ি ৷ তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক সুস্থ থাকার উপায় ৷

 সুস্থ থাকার উপায়

অলসতা না করে কিছু সামান্য নিয়ম কানুন মেনে চললে আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন ৷ চলুন জেনে নেওয়া যাক সুস্থ থাকার উপায়গুলো :-

** সূর্য উদয়ের সাথে সাথে অর্থাৎ খুব সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠা বা উঠে পড়া ৷ এতে শরীর ও মন দুটোই ভালো থাকে ৷ কিন্তু অনেকেই আছে যারা অলসতার কারণে সকালবেলা ঘুমিয়ে থাকে ৷ আর আপনার হয়তো লক্ষ্য করেছেন যারা দেরিতে ঘুম থেকে ওঠে তাদের দেখেই বোঝা যায় যে সে অসুস্থ ৷ তাই আমাদের তাড়াতাড়ি ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস করা দরকার সর্বপ্রথম ৷

** দ্বিতীয়ত পরিমিত পানি পান করতে হবে ৷ যেমন ধরুন সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে আপনি এক গ্লাস পানি পান করলেন এরপর দেখবেন ফলস্বরূপ আপনি অনেকটা সুস্থ অনুভব করছেন নিজের থেকে ৷

** অতঃপর আপনি ঘুম থেকে উঠে পানি পান করে একটু হাটতে বের হবে বাহিরে ৷ এবং প্রাকৃতিক আবহাওয়া অনুভব করবেন ৷ আর সকালের আবহাওয়া এমনিতেই অনেক সুন্দর থাকে ৷ এই আবহাওয়াটা যখন গায়ে লাগে তখন নিজে থেকেই শান্তি অনুভূত হয় ৷ এবং নিজেকে সুস্থ মনে হয় ৷ মনো ও ফ্রেশ হয় ৷

** অনেকেই আছে যারা ঠিকমত খাবার খায় না ৷ তাদেরকে বলব মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে বলেছেন সকালবেলা হালকা নাস্তা করা উচিত প্রত্যেকে ৷ তাই সকাল বেলা হাটাহাটি করার পর একটু নাস্তা করে নিবেন দেখবেন ৷

** সুস্থ থাকতে হলে আপনাকে আপনার খাবারের সময়টাকে থাইক করতে হবে অর্থাৎ যে সময়টাতে আপনি খান বা আপনার তিন বেলার খাবার রুটিন এর জন্য আপনি একটি টাইম ঠিক করবেন আর ওই টাইমে প্রতিদিন ৩ বেলা খাবেন ৷ দেখবেন আপনার গ্যাসের প্রবলেম আর হবেনা ৷

** আর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমাতে যাওয়া ৷ যারা রাত জেগে থাকেন তাদের জানা উচিত যে রাত জাগা খুবই বাজে একটি অভ্যাস ৷ যারা রাত জাগে তারা বিভিন্ন রকম অসুস্থতায় ভোগে ৷ তাই আমাদের উচিত রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমানো এবং সকালে তাড়াতাড়ি জেগে ওঠা ৷

** অনেকেই আছে যারা এই রুটিন গুলো মেইনটেইন করতে পারেনা যেমন ধরুন সকালে ঘুম থেকে উঠতে পারে না ৷ তাদেরকে বলব আমি একটি টিপস তাদেরকে আজকে জানিয়ে দেবো যার মাধ্যমে তারা খুব সহজেই এই রুটিন মেইনটেইন করে চলতে পারবে ৷ আপনি যদি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত নিয়মিত আদায় করেন তাহলে আপনি অবশ্যই এই রুটিন মেনে চলতে পারবেন অনায়াসে ৷

আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন যে কিভাবে আপনি আপনার শরীরকে সুস্থ রাখতে পারবেন ৷ এই রুটিনটি মেইনটেইন করে চললে আপনি সর্বদা সুস্থ থাকবেন আর শরীর সুস্থ থাকলে মনে শান্তি থাকে ৷ আর মনের শান্তি হলো বড় শান্তি ৷

সুস্থ থাকার দোয়া

যারা সুস্থ থাকার জন্য দোয়া খুঁজছেন তাদের জন্য আজকে আমি এই পোস্টটির লিখছি ৷ আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন যে কিভাবে সুস্থ থাকা যায় ৷ সুস্থ থাকার সর্ব উত্তম দোয়া হলো সকল কাজের শুরুতে ” আউযুবিল্লাহি মিনাশ শাইতানির রাজিম বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম” বলা অর্থাৎ যেকোনো খাবার খাওয়ার পূর্বে এবং গোসল থেকে শুরু করে সকল কাজের শুরুতে আপনি যদি এটি পড়েন তাহলে আপনি সর্বদা সুস্থ থাকবেন ৷

এছাড়াও আপনার শরীর সুস্থ রাখার সর্ব উত্তম উপায় হলো সব সময় শরীর পবিত্র রাখা অজুর মাধ্যমে ৷ আর আপনি যদি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করেন তাহলে আশা করা যায় আপনার শরীর সবসময় সুস্থ এবং পবিত্র থাকবে ৷ সুস্থ থাকার সবচেয়ে বড় উপায় হল সালাত আদায় করা ৷ সালাতের উপরে সুস্থ থাকার আর কোন বড় উপায় ৷

তাই আপনিও যদি সর্বদা সুস্থ থাকতে চান তাহলে অবশ্যই পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায় করবেন ৷ এবং শরীর পবিত্র রাখবেন ৷ নোংরা অবস্থায় থাকবেন না ৷ কাপড়-চোপড় সব সময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখবেন ৷ তাহলেই আপনি সুস্থ থাকতে পারবেন ৷

হার্ট সুস্থ রাখার উপায়

অনেকের হার্টের সমস্যা রয়েছে ৷ তাই আমি তাদের কথা বিবেচনা করে হার্ট সুস্থ রাখার কিছু উপায় তাদেরকে জানিয়ে দেবো ৷  অনেকেই আছে যারা সুস্থ থাকা অবস্থায় নিজের বিন্দুমাত্র যত্ন নেই না যখন অসুস্থ হয়ে পড়ে তখন অনুশোচনায় ভোগে ৷ কিন্তু আমাদের উচিত সুস্থ থাকার অবস্থায় শরীরের যত্ন নেওয়া ৷ তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যায় হার্ট সুস্থ রাখা যায় ৷

আপনি যখন সুস্থ থাকবেন তখন আপনার কিছু করণীয় রয়েছে যেই কাজগুলো করলে আপনার হার্ট সুস্থ থাকবে ৷ উপায়গুলো নিচে দেওয়া হল :-

** অতিরিক্ত ঘুমানোর কারণে হৃদপিণ্ড অসুস্থ হয়ে পড়ে ৷ তাই আমাদের প্রত্যেকের উচিত সুস্থ থাকা অবস্থায় অতিরিক্ত না ঘুমিয়ে স্বাভাবিক নিয়মে ঘুমানো ৷

** হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখতে যথাসম্ভব চোর বিযুক্ত খাবার কম কম খাওয়া ৷

** স্বাস্থ্যকর ও পরিমিত খাবার গ্রহণ করা ৷

** নিয়মিত শারীরিক ব্যায়াম করা ৷

** যথাসম্ভব কায়িক পরিশ্রম করে শরীরের ঘাম ঝরানো ৷

** ধূমপান করা থেকে বিরত থাকা এবং সমস্ত মাদকদ্রব্য থেকে দূরে থাকা ৷

** মানসিক চাপ না নেওয়া ৷ সব সময় মনকে ফুরফুরে রাখা ৷

এই নিয়মগুলো মেনে চলার মাধ্যমে আপনি আপনার হার্ট অর্থাৎ হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখতে পারবেন ৷ সব এসব নিয়ম যারা মেনে চলেনা তাদের হৃদপিণ্ড ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়ে যার কারণে পরবর্তীতে বড় সমস্যা সৃষ্টি হয় ৷ তাই আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত এই নিয়মগুলো প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মেনে চলা ৷

কিডনি সুস্থ রাখার উপায়

আমরা অনেকেই আছি যারা অলসতা বসত পানি পান করি না ৷ কিন্তু আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত প্রতিদিন পরিমিত পানি পান করা ৷ আমরা যদি পরিমিত পানি না পান করি তাহলে আমরা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়বো ৷ তাই আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত নিজেদের সুস্থতার জন্য পরিমিত পানি পান করা ৷

যেমন আমরা যদি নিয়মিত ৮ থেকে ১০ গ্লাস পানি পান না করি তাহলে দেখা যাবে একটা সময় আমাদের কিডনি অকার্যকর হয়ে পড়েছি ৷ আর কিডনি সুস্থ রাখার অন্যতম উপায় হল পানি পান করা ৷ তাই আমাদের পরিমিত পানি পান করতে হবে ৷

কিডনি ভালো রাখার ঔষধ

আপনারা যারা কিডনি ভালো রাখার ওষুধ সম্পর্কে জানতে চাচ্ছেন তাদেরকে আমি আজকে জানিয়ে দেবো যে কিডনি ভালো রাখতে কি কি ওষুধ সেবন করতে হয় ৷ মানুষের দেহের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো কিডনি ৷ তাই আমাদের প্রত্যেকের উচিত কিডনি সুস্থ রাখা ৷

কিডনি সুস্থ রাখার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ঔষধ হলো পানি ৷ পরিমিত পানি পান করার মাধ্যমে আপনি আপনার পিকনিকে সুস্থ রাখতে পারবেন ৷ কিডনি সুস্থ রাখার জন্য আলাদা কোন ওষুধ সেবন করার দরকার নেই ৷ তবে আপনার কিডনিতে যদি সমস্যা ধরা পড়ে সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করতে পারেন ৷

কিডনি ভালো আছে কিনা বোঝার উপায়

ভালো আছে কিনা এটি জানা আমাদের খুবই গুরুত্বপূর্ণ ৷ আর তাই আমি আপনাদের সাথে আজকে আলোচনা করব যে ঠিকনি ভালো আছে কিনা সেটা কিভাবে বোঝা যায় ৷ আজকের এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনি সুস্থ থাকার বিভিন্ন উপায় পেয়ে যাবে তাই অবশ্যই প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত ভালোভাবে পড়বেন ৷ আপনি যদি পোস্টটি ভালোভাবে পড়ে তাহলে আপনি অনেক উপকৃত হবেন ৷

কিডনি সুস্থ আছে কিনা এটি জানার জন্য আপনাকে জিএফ আর বা সিসিআর টেস্ট করাতে হবে ৷ আপনার টেস্ট রিপোর্ট এ যদি জিএফ আর ৯০ এর উপর হয় ৷ তাহলে বুঝতে পারবেন যে আপনি সুস্থ অর্থাৎ আপনার কিডনিতে কোন সমস্যা হয়নি ৷ আপনার পেটে যদি অনেক ব্যথা অনুভূত হয় তবে এই টেস্টগুলো করিয়ে নিবেন ৷ তাহলেই বুঝতে পারবেন আপনি সুস্থ নাকি অসুস্থ আছেন ৷

স্বাস্থ্য ভালো করার উপায়

অনেকেই আছে যারা দিন দিন রোগা হয়ে যাচ্ছে এবং শরীরে বিভিন্ন রোগ হচ্ছে ৷ তাদের এই অসুস্থতা কিংবা রোগা হওয়ার মূল কারণ হচ্ছে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার ও স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশের অভাব। স্বাস্থ্য ভালো করার জন্য আপনার প্রধান কাজ হচ্ছে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার গ্রহণ করা। এছাড়াও আপনার থাকার পরিবেশ ও ভালো করা। যদি আপনার খাবার নির্ভেজাল থাকে। আপনি যদি স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেয়ে থাকেন তাহলে আপনার স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।

স্বাস্থ্য ভালো রাখার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম হচ্ছে শরীর চর্চা করা। শরীর চর্চা করার মাধ্যমে স্বাস্থ্য ভালো রাখা যায়। কেননা আপনি যদি প্রতিনিয়ত শরীর চর্চা করেন তাহলে আপনার রোগ বালাই হবে না। যার ফলে আপনার শরীর রোগমুক্ত থাকবে। আর শরীর রোগমুক্ত থাকলে আপনি সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হবেন। তাই স্বাস্থ্য ভালো রাখতে প্রতিনিয়ত শরীর চর্চা করুন।

Read More 

Hosting Partner