সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি ও বেতন বেশি

সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি ও বেতন বেশি

সৌদি আরব বাংলাদেশ থেকে সবচেয়ে বেশি শ্রমিক নিয়োগ দিয়ে থাকেন। আর বাংলাদেশ থেকে অসংখ্য মানুষ সৌদি আরব ওয়ার্ক পারমিট ভিসায় যায়। আজকের এই পোস্টে আমি জানাবো সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি। সেই সাথে আরও জানান সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি। ভুতু বেশিরভাগ মানুষ সৌদি আরবে কাজের উদ্দেশ্যে যায় তাই তারা জানতে চাই কোন কাজের বেতন বেশি। কেননা মানুষ নিজ দেশ থেকে অন্য দেশে যায় টাকা কামানোর উদ্দেশ্যে। যদি বেতন ভালো থাকে তাহলে মানস টাকা খরচ করে সেই দেশে গিয়ে থাকে। চলুন এবার জেনে নিন সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি ও কোন কাজের চাহিদা বেশি।

সৌদি আরবে কোন কাজের চাহিদা বেশি

সৌদি আরবে প্লাম্বিং ( পাইপ ফিটার), নির্মাণ কাজ, ইলেকট্রিক কাজ ও রেস্টুরেন্ট কাজের চাহিদা বেশি। তবে এ সকল কাজের মধ্যে প্লাম্বিং ও ইলেকট্রিক কাজের বেতন বেশি হয়ে থাকে। যদি আপনি পাইপ ফিটিং এর কাজ ভালো পারেন অথবা ইলেকট্রিক কাজ ভালো পারেন সেক্ষেত্রে আপনি এই দুই কাজের জন্য ভিসা আবেদন করতে পারেন। যদি এই দুই কাজের যে কোন একটি কাজের ভিসা আপনি পেয়ে যান সেক্ষেত্রে আপনার বেতন অনেক ভালো হবে।

সৌদি আরব সবচেয়ে বেশি কাজের ভিসা দিয়ে থাকে নির্মাণ কাজের জন্য। কেননা বিল্ডিং তৈরির জন্য অনেক নির্মাণ শ্রমিক প্রয়োজন হয়। যার কারণে সৌদি সরকার প্রতিবছর হাজার হাজার নির্মাণ শ্রমিক তার দেশে নিয়োগ দিয়ে থাকেন বাংলাদেশ থেকে। যদি আপনি একজন ভালো রড মিস্ত্রি হয়ে থাকেন তাহলে সেক্ষেত্রে আপনার চাহিদাও বেশি এবং বেতনের পরিমাণ বেশি হবে। তাই সৌদি যাওয়ার পূর্বে রডমিস্ত্রির কাজ শিখে যাওয়া ভালো।

এছাড়াও রেস্টুরেন্টের কাজের জন্য বর্তমানে অনেক শ্রমিক নিয়োগ দিচ্ছে সৌদি। রেস্টুরেন্টের খাবার রান্না, ওয়েটার, পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজের জন্য সৌদি আরবের বিভিন্ন কোম্পানি বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়ে থাকে। এ সকল কাজের জন্য তারা ভালো বেতন প্রদান করে থাকে। তাই আপনি চাইলে উপরে উল্লেখিত যে কোন একটি কাজের ভিসায় সৌদি আরব যেতে পারেন এবং এই সকল কাজের চাহিদা সবচেয়ে বেশি।

সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি

আপনি যদি সৌদি যেতে চান সেক্ষেত্রে আপনার কাজের বেতন সম্পর্কে জেনে নেয়া ভালো। কেননা মানুষ ভালো বেতন পাওয়ার জন্য বিদেশ যায়। যদি সেখানে অল্প পরিমাণ বেতন থাকে তাহলে কাজ করে খুব একটা লাভবান হওয়া যায় না। কারণ মানুষ তার জীবন যাত্রার মান উন্নত করার জন্য সৌদি আরব যায়। তাই জীবন যাত্রার মান উন্নত করার জন্য সবচেয়ে বেশি যেটা জরুরী তা হলো কাজের বেতন। চলুন এবার জেনে নেই সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি এবং কত করে দেয়।

আমি যে সকল বেশি বেতন কাজের বেতন তুলে ধরেছি তাতে সুযোগ পাওয়া খুবই কঠিন। সবচেয়ে জরুরি ইংরেজি ও আরবি ভাষায় দক্ষতা ব্যতীত এবং আপনার কাজের দক্ষতা ব্যতীত আপনি চাকরি করতে পারবেন না। যদি আপনি এই সকল কাজের সুযোগ পেয়ে যান তাহলে আপনি কোটিপতি হতে সময় লাগবে না। নিচে বাংলাদেশি টাকায় এর সকল কাজের বেতন তুলে ধরা হলো।

ক্লিনার ⇒ ৩০ হাজার টাকা।

নির্মাণ শ্রমিক ⇒ ৩৫ হাজার টাকা।

পাইপ ফিটার ⇒ ৬০ হাজার টাকা।

ইলেকট্রিক ⇒ ৭০ হাজার টাকা।

রেস্টুরেন্ট ⇒ ৪০ হাজার টাকা।

ওয়েটার  ⇒ ১৪ লক্ষ টাকা।

কোষাধ্যক্ষ ⇒ ১৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

রিসেপশনিস্ট ⇒ ১৫ লক্ষ টাকা।

প্রশাসনিক সহকারি ⇒ ১৫ লক্ষা ৫০ হাজার টাকা।

নার্স ⇒ ১৬ লক্ষ টাকা।

গ্রাফিক্স ডিজাইনার ⇒ ১৬ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

হিসাব রক্ষক ⇒ ১৭ লক্ষ 50 হাজার টাকা।

ফার্মাসিস্ট ⇒ ২০ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।

ওয়েব ডেভলপার ⇒ ২১ লক্ষ টাকা।

শিক্ষক ⇒ ২২ লক্ষ টাকা।

নির্বাহি সহকারি ⇒ ২৫ লক্ষ টাকা।

বৈদ্যুতিক প্রকৌশলী ⇒ ২৭ লক্ষ টাকা।

সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার ⇒ ২৯ লক্ষ টাকা।

মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার ⇒ ৩০ লক্ষ টাকা।

অফিস ম্যানেজার ⇒ ৩১ লক্ষ টাকা।

আর্কিটেকচার ⇒ ৩৫ লক্ষ টাকা।

প্রভাষক ⇒ ৩৭ লক্ষ টাকা।

ফ্যাশন ডিজাইনার ⇒ ৪০ লক্ষ টাকা।

একাউন্ট ম্যানেজার ⇒ ৪৭ লক্ষ টাকা।

 চিকিৎসক ⇒ ৫১ লক্ষ টাকা।

গবেষক বিজ্ঞানী ⇒ ৭৯ লক্ষ টাকা।

সি লেভেল নির্বাহি ⇒ ২ কোটি ৯৫ লাখ

আশা করি আপনি জানতে পেরেছেন সৌদি আরবে কোন কাজের বেতন বেশি ও কোন কাজের চাহিদা বেশি। আপনার দক্ষতা অনুসারে আপনার বেতন নির্ভর করবে। তাই আপনি যদি বেশি বেতনে চাকরি করতে চান সেক্ষেত্রে আপনার নিজের দক্ষতাকে বৃদ্ধি করুন। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

Read More